বাসে বা ট্যাক্সিতে গা গোলানো বা বমি বমি ভাব থেকে মুক্তি

কাজের সূত্রে আমাদের প্রত্যেক কেই বাইরে বেরতে হয়। কিন্তু দ্রুত গতিতে গারি ছলতে শুরু করলেই আনেকের মাথা যন্ত্রণা শুরু হয় আবার গা গোলাতে থাকে, এটা মহা সমস্যা। সমস্যা যখন আছে সমাধান ও আছে। কয়েকটা অতি সাধারণ নিয়ম মেনে চললেই এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে। মানুষের শরীরে ৩টি আংশ গতি নির্ণয় করতে পারে এবং তথ্য মস্তিষ্কে পৌঁছে যাইয়েই ৩ টি আংশ হল- চোখ, অন্তঃকর্ণ এবং ত্বক। এদের ‘সেন্সরই রিসেপ্টর’ বলা হয়। যখনই এই ৩ সেন্সরের মধ্যে কোনও অসামঞ্জাস্যতা দেখা দায়, তখনই মূলত মোশন সিকনেস দেখা দেয়।

Image Source

কিন্তু এই সমস্যা থেকে বাঁচার উপায় ও আছে —
১. গাড়িতে বসে রাস্তার পরিবেশ দেখুন।
২. তেলের গন্ধ কাটাতে ভাল গন্ধর এয়ারফ্রেশ্নার খুব ভালও কাজে দিতে পারে।
৩. যাত্রাপথের গতির বিপরীতে তাকানো উচিত নয়।
৪. বেশি সময়ের যাত্রা হলে বিরতি নিতে পারেন।
৫. মাঝের সিট বেছে নিতে পারেন ঝাঁকুনি কম হবে।
৬. জোরে জোরে শ্বাস নিয়ে আস্তে আস্তে ছাড়ুন।
৭. সুন্দর , সুরেলা, স্নিগ্ধ গান শোনা জেতে পারে।
৮. মোবাইল ফোন বা ট্যাব ব্যবহার না করাই ভাল।
৯. খালি পেটে থাকলে বমি হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। তাই গাড়িতে ওঠার আগে কিছু হালকা খাবার খেয়ে নিন। তবে অতিরিক্ত তৈলাক্ত এবং মশলাদার খাবার একেবারেই খাবেন না। এতে হিতে বিপরীত হতে পারে।

১০. অন্য কাজে মনোনিবেশ করুন। বমির কথা মাথা থেকে বের করে অন্যদের সাথে গল্প করুন অথবা এমন কিছু করুন যাতে মনোযোগ অন্য দিকে সরে যায়।
১১. উপরের সব টোটকাতেও কাজ না হলে গাড়িতে ওঠার ৩০ মিনিট আগে একটি বমি না হওয়ার ট্যাবলেট খেয়ে নিন।

এই প্রতিবেদনটি ভালো লাগলে লাইক ও শেয়ার করে সবাইকে জানান। অনেকেই উপকৃত হবেন। আরো কিছু জানার থাকলে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না কিন্তু। ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন।

One thought on “বাসে বা ট্যাক্সিতে গা গোলানো বা বমি বমি ভাব থেকে মুক্তি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!
Inline
Inline