চাকরিতে ইন্টারভিউ দিতে যাবার সময় যে ভুলগুলি কখনই করা উচিত নয়

চাকরির  ইন্টারভিউ। একটু আলাদা ব্যাপার হবেই। এতো আর বিয়েবাড়ি বা আনন্দ অনুষ্ঠান বাড়ি যাওয়া নয়। জীবনের বাকি সময়টা স্বাচ্ছন্দ্যে কাটানোর একটা পরীক্ষা। চাকরির আকাল এমনিতেই। তাই যেকোনো ইন্টারভিউ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সেখানে সামনে বসে থাকা বিভিন্ন অভিজ্ঞ ব্যাক্তির সামনে নিজের অভিজ্ঞতা স্মার্টলি প্রকাশ করার সুযোগ। তাই অবশ্যই প্রস্তুতির প্রয়োজন। কিন্তু অনেকসময় ইন্টারভিউ দিতে গিয়ে ভুল হয়ে থাকে। সেগুলো শুধরে দেওয়ার মতোও কেউ থাকেনা। তাই এক ঝলকে দেখে নিন চাকরিতে ইন্টারভিউ দিতে যাওয়ার সময় কখনই এই ভুলগুলি করবেন না-

১. বেশভূষা-

ইন্টারভিউ-য়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কারণ মনে রাখতে হবে ফার্স্ট ইমপ্রেশন ইজ দ্য লাস্ট ইমপ্রেশন। তাই এমন পোশাক পড়তে হবে যাতে ফরম্যালিটিও বজায় থাকে আবার নিজের স্মার্টনেস ও। যে পোশাক বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা মারার সময় পড়া যায় সেটা কখনই ইন্টারভিউ দিতে গেলে পড়া যায় না। প্যান্ট-শার্ট এগুলো পড়ে যাওয়াই ভালো।

image source

২. দেরি করে উপস্থিত-

সবকিছুরই একটা সময় থাকে। কেউ কারোর জন্য বসে থাকে না। তাই ইন্টারভিউ দিতে যাওয়ার জন্য সময় হাতে নিয়ে বেরোনো দরকার। পারলে নির্দিষ্ট সময়ের অনেক আগে গিয়ে উপস্থিত হওয়া দরকার। কারণ দেরি হয়ে গেলে সরি, মাফ করবেন এসব অজুহাত দেখালে আখেরে ক্ষতি আপনারই হবে।

image source

৩. অপ্রস্তুতি-

এখন ইন্টারনেটে যুগ। মোবাইল খুললেই অজানা জিনিস হাতের মুঠোয় আসে। যে কোনো জায়গায় ইন্টারভিউ দিতে যাওয়ার আগে সেই কোম্পানি বা তাদের বিষয়বস্তু জেনে নিয়ে ইন্টারনেট ঘেঁটে সমস্ত বিষয় খুঁটিয়ে পড়া উচিত। কারণ ইন্টারভিউয়ের জায়গায় অন্যান্য প্রার্থীদের কাছে হাসির খোরাক হতে হবে যে।

image source

৪. অপ্রাসঙ্গিক কথা  বলা-

ইন্টারভিউ যাঁরা নিচ্ছেন তাঁরা যে প্রশ্ন করবে শুধু সেই প্রশ্নের যথাযথ উত্তরের মধ্যেই আপনার বুদ্ধিমত্তা লুকিয়ে থাকে। তাই  অযথা ভাট বকাটা আপনার কাছে ক্ষতিকর।

image source

৫.  ফোনে রিং বেজে ওঠা-

ইন্টারভিউ ঘরে যাওয়ার আগে মুঠো ফোনটি সাইলেন্ট বা বন্ধ রাখা ভালো। প্রশ্নোত্তরের মাঝে ফোন বেজে উঠলে বিচারকদের কাছে খারাপ মন্তব্যের শিকার হতেই পারেন।

৬. আগের চাকরির বদনাম না করা

কখনই আগে কোনো স্থানে চাকরি করলে সেই জায়গার বদনাম না করাই ভালো। কে বলতে পারে সেই কোম্পানির সঙ্গে নতুন জায়গাটির ভালো সম্পর্ক আছে।

image source

৭.  অনাগ্রহ-

ইন্টারভিউ দিতে গিয়ে বিচারকদের সামনে বসে দুর্বল বা মনমরাভাব প্রকাশ যাতে না পায় তার চেষ্টা করতে হবে। কারণ অনাগ্রহ দেখলেই অপমানের শিকার হতে বেশি দেরি লাগে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!
Inline
Inline