ভগবত গীতার দশটি শেখার বিষয়

হিন্দু ধর্মমতে গীতা একটি মূল বিষয়। হিন্দুদের গীতা, মুসলিমদের কোরান ও খ্রীষ্টানদের বাইবেল মূল ধর্মগ্রন্থ। মানুষের মৃত্যুর পরও বুকে গীতা বই দেওয়া হয়। হিন্দুদের শ্রাদ্ধ কার্যে ব্রাহ্মনদের গীতা দান করা হয় এছাড়াও বিভিন্ন কাজে গীতা বই দেওয়ার রীতি রয়েছে। বেশির ভাগ বাড়িতেই সন্ধ্যে বেলা গীতা বই পাঠ করা হয়। গীতার কয়েকটি শিক্ষনীয় বিষয় গুলি দেখে নিন-

Image Source

১. যা ঘটছে- যা ঘটছে ঘটতে দেওয়াই উচিত। তা থামানোর অধিকার কারোর নেই। মঙ্গলের জন্যই ঘটছে ভেবে তা গ্হন করতে হবে।

২. ফল ছাড়াই কর্ম করে যাও- ফলের আশা না করে কর্ম করে যাওয়াই উচিত পরে ফল এমনিই আসবে।

৩. অমর আত্মা- মানুষের মৃত্যুর পর শরীরের পরিবর্তন হয়। আত্মার কোনও বদল হয় না। আত্মা কখনও মরে না।

৪. লোভ, লালসা, ক্রোধ ত্যাগ করুন- লোভ, লালসা ও ক্রোধ মানুষের পতনের মূল কারণ। নির্লোভ হলে সুখ এমনিতেই আসবে।

৫. সকলেই পরম বন্ধু ও শত্রু- বন্ধু বা শত্রু এগুনি মনোভাব নিজের মন থেকেই আসে। কিন্তু সকলকেই পরম বন্ধু ভাবা দরকার।

৬. যেমন কর্ম তেমন ফল- যেমন কর্ম তেমন ফল এটা সকলের মুখেই ঘোরে। কিন্তু আপনি যেমন কর্ম করবেন তেমনি ফল পাবেন। এটা বিচার ওপর থেকেই হয়। আপনি কখনও নিজের বা অপরের বিচার করতে পারবেন না।

৭. অপরকে সম্মান দিন- নিজে সম্মান পেতে হলে অপরকে সম্মান করতে হবে ও ভালোবাসতে হবে । কাউকে কিছু দিলেই তবে ফেরত পাওয়া যায়।

৮. ধন সম্পত্তির লোভ বর্জন করুন- কারোর ধন বা সম্পত্তির লোভ করবেন না। এর কারণে নিজের সম্পত্তি থেকেও  বঞ্চিত হতে পারেন।

৯. ভগবান শ্রীকৃষ্ণ সর্ব শক্তিমান- ভগবান শ্রীকৃষ্ণের ওপর আস্থা রাখুন। তিনিই সর্বে সর্বা। ভাবুলে আর ভক্তি করলেই সব সমস্যা দূর হবেন

এই প্রতিবেদনটি ভালো লাগলে পোস্টটি লাইক ও শেয়ার করুন। যে কোনো প্রয়োজনে কমেন্ট করে জানাতে পারেন। আরো পোস্ট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ পশ্চিমবঙ্গ 24×7

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!
Inline
Inline